‘অধিকারী হীন তৃণমূল’, দুই ভাই বিজেপিতে, রইল বাকি দুই

“আমার পরিবারেও পদ্ম ফুটবে”; অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে চ্যালেঞ্জ দিয়ে; এমনটাই বলেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। সেটাই ধীরে ধীরে সত্য হচ্ছে। ‘অধিকারী হীন তৃণমূল’; দুই ভাই বিজেপিতে, রইল বাকি দুই। বাবা শিশির অধিকারী; তিন ছেলে শুভেন্দু-দিব্যেন্দু-সৌমেন্দু। এতদিন এই অধিকারী পরিবারই ছিলেন; পূর্ব মেদিনীপুরে তৃণমূলের মুখ। কিন্তু ইতিমধ্যেই দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করে; গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়েছেন শুভেন্দু। তারপরেই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়েছিলেন, তৃণমূলের যুবরাজ; অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি শুভেন্দুকে চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেন; “যে নিজের ঘরেই, পদ্ম ফোটাতে পারেনি; সে কি করে বাংলায় পদ্ম ফোটাবে”।‌ জবাব দিয়েছেন শুভেন্দু; “আমার ঘরেও পদ্ম ফুটবে”; পরিষ্কার জানিয়েছিলেন তিনি। সেই সময় এসে গিয়েছে, মনে করছে; রাজনৈতিক মহল।

সৌমেন্দু অধিকারীকে পুর প্রশাসকের পদ থেকে; সরানোর পর থেকে এমনটাই জল্পনা ছড়াচ্ছে। সম্প্রতি খড়দা জনসভা থেকে শুভেন্দু জানিয়েছিলেন; ”আমার বাড়িতেও পদ্ম ফোটাবো”। স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন; যে অধিকারী পরিবারের সদস্যরাও বিজেপিতে যাবেন; সেই সময় বেশি দূরে নয়। এরপরেই কাঁথি পুরসভার প্রশাসক পদ থেকে সরানো হয়; শুভেন্দুর ভাই সৌমেন্দুকে।

শুভেন্দুর ভাই সৌমেন্দু অধিকারীকে অপসারণ করা হল; কাঁথি পুরসভার বোর্ড অব অ্যাডমিনিস্ট্রেটর্স থেকে। এরপরেই তৃণমূলের প্রতি ক্ষো’ভ উগরে দিয়ে মুখ খোলেন; আর এক ভাই তৃণমূল সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী। দিব্যেন্দু পরিষ্কার জানিয়ে দেন; কাঁথি পুরসভায় তাঁর যে দপ্তর রয়েছে; সেখানে আর যাবেন না তিনি। তিনিও ক্ষুব্ধ তৃণমূলের প্রতি।

অন্যদিকে রাজনৈতিক মহলের খবর, শিশির অধিকারী পরবর্তী লোকসভা নির্বাচনে; টিকিট পাচ্ছেন না এটা একেবারে নিশ্চিত। তাই তাঁকে এখন থেকেই সাইড করা হচ্ছে; তাঁর বিরুদ্ধে অবলীলায় মুখ খুলেছেন অখিল গিরি। সুতরাং শিশির অধিকারী শেষ পর্যন্ত গেরুয়া শিবিরে যেতে পারেন বলেই; ধরে নিচ্ছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

Recommended For You