খাস কলকাতার বুকে ঘটে গেল ন্যাক্কারজনক ঘটনা!! প্রতিবাদে সরব নেটিজেনরা!

খাস কলকাতার বুকে এক ন্যক্কারজনক ঘটনা দেখে হঠাৎ থমকে দাঁড়ায়….!!

 

বিকাশ ভবনের কাজ সেরে অফিস ফেরার উদ্দেশ্যে গড়িয়াহাট এ বাস থেকে নেমে দেখলাম কিছু প্রতিবাদী মানুষের ভীড়…. কাছে যেতে জানতে পারলাম ছবিতে দেখা উচ্চশিক্ষিতা, দামী ব্র্যান্ডের পোশাক পরিহিতা, উচ্চবিত্ত মহিলাটি একটি ধুপ বিক্রেতা পথ শিশুকে তার পায়ের দামী ব্র্যান্ডের জুতো দিয়ে শিশুটির গালে সপাটে কয়েক ঘা জুতো পেটা করছেন….

ব্যাপারটা দেখে প্রচন্ড ভাবে মর্মাহত হলাম…. নারী মানে তো মায়ের জাত….!! সেই মা কীভাবে ওপর এক গরিব , ক্ষুধার্ত পথ শিশুকে প্রকাশ্যে জুতো পেটা করতে পারে…??

শিশুটির অপরাধ স্বরূপ ওই উচ্চবিত্ত মহিলাটির দামী গাড়ির কাঁচে দু- একবার টোকা মেরে ১০টাকার ধুপ কেনার অনুরোধ করে…. এর ফলে দুজনের মধ্যে কিছু বচসার সৃষ্টি হয় , তৎক্ষণাৎ মহিলাটি গাড়ি থেকে নেমে শিশুটির গালে বারংবার তার পায়ের জুতো টি খুলে মারতে থাকে…

এমতবস্থায় কিছু প্রতিবাদী মানুষ দৌড়ে আসে এবং শিশুটিকে উদ্ধার করে , সাথে সাথে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে এবং দুজনকে গড়িয়াহাট থানায় নিয়ে যায়…

সাক্ষী স্বরূপ ওই সমস্ত প্রতিবাদী মানুষ গুলোকে থানায় যেতে আহ্বান করা হলে তারাও সাক্ষী দিতে রাজি হয়…. প্রতিবাদ টা আরো মজবুত করতে আমিও তাদের সাথে থানায় যায় এবং দোষীর শাস্তির দাবি করি…

পুলিশ ব্যাপারটি আলোচনার দ্বারা এবং মহিলাটিকে ক্ষমা চাইয়ে ঘটনাটি মীমাংসা করেন….

 

কিন্তু একটা প্রশ্ন থেকেই যায়…??

–শুধুমাত্র ক্ষমার চাওয়ার মাধ্যমেই কি এত বড় অপরাধ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়??

 

আজও গরিব পথশিশুরা উন্মত্ত, উচ্চবিত্ত, উচ্চশিক্ষিত, ধনী, ভদ্রতার আড়ালে এক পৈশাচিক অত্যাচারের শিকার হয়….

আজও আমাদের দেশের বেশির ভাগ শিশু অশিক্ষার অন্ধকারে নিমজ্জিত…. ক্ষুধার জ্বালা নিবারণ করার জন্য আজও প্রচুর শিশুকে শ্রম, মজদুরি করতে হয়…

 

কবে এই অত্যাচার, নিপীড়ন, শেষ হবে জানি না…

 

তবে চোখের সামনে ঘটে যাওয়া এই ন্যাক্কারজনক ঘটনাটি প্রতিবাদ না করে পারলাম না….

 

বিশেষ দ্রষ্টব্য :- কোন ব্যক্তির আত্মসম্মানকে আঘাত করা আমার উদ্দেশ্য নয়…🙏🙏

শুধুমাত্র এক গরিব পথশিশুর উপর হয়ে যাওয়া অত্যাচারকে জনগণের সামনে আনাই আমার উদ্দেশ্য…

ভুল ত্রুটি মার্জনীয়….🙏🙏

 

[কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভিষেক রায়]

তথ্যসূত্র- সোশ্যাল মিডিয়া (ফেসবুক)

Recommended For You